কলকাতায় আর্সেনিক! রোগ থাবা বসাচ্ছে শরীরে

দেবস্মিতা

কলকাতার মাটিতে পাওয়া গেল আর্সেনিক, এমনই চাঞ্চল্যকর দাবি বিশেষজ্ঞদের। আইনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে যেখানে সেখানে বসানো হচ্ছে নলকূপ। আর সে পথেই আর্সেনিক হানা দিচ্ছে শহরে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, শহরজুড়ে মোট পাম্পের সংখ্যা, সরকারি নথিভুক্ত পাম্পের তুলনায় প্রায় ৪-৫ গুণ বেশি। টাকা থাকলেই হল, নিয়মের তোয়াক্কা না করেই বসানো হচ্ছে নলকূপের পাইপ।

কলকাতা পুরসভার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, গভীর নলকূপের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ জল তোলার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট আইন থাকলেও ছোট নলকূপের জন্য সেভাবে কোনও আইন নেই। কলকাতার নানা জায়গায় পাইপ বসিয়ে পাম্পের মাধ্যমে জল তোলা হচ্ছে। এতেই ঘটছে বিপত্তি। বর্তমানে কলকাতার ১৪৪ টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৭৭ টি ওয়ার্ডেই মিলেছে আর্সেনিক। এর মধ্যে ৩৭ টি ওয়ার্ডের অবস্থা খুবই শোচনীয় যার ১৯ টিই আবার দক্ষিণ কলকাতায়। কলকাতা পুর কর্তৃপক্ষ অবশ্য এ তথ্য নস্যাৎ করেছে। জল সরবরাহ দফতরের এক পদস্থ কর্তার দাবি, ‘নিয়মিত আর্সেনিকের মাত্রা পরীক্ষা হয়। তেমন কিছু মেলেনি।’

আর্সেনিকযুক্ত জল খেয়ে মানুষের মধ্যে রোগের পরিমাণও বাড়ছে। রাজ্য আর্সেনিক টাস্ক ফোর্সের এক সদস্য দেবেন্দ্রনাথ গুহ মজুমদার জানিয়েছেন, আর্সেনিক রোগীদের ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। কলকাতার এক চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, আর্সেনিক মেশানো জল নিয়মিত পান করলে চর্মরোগ, লিভারের নানা সমস্যা এবং হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কয়েকগুণ বেড়ে যায়। মুর্শিদাবাদ, মালদা, নদিয়া, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার পর এবার আর্সেনিক সংক্রমিত জেলার তালিকায় নাম উঠল কলকাতারও। বেআইনিভাবে নলকূপ বসানো বন্ধ না হলে শহরে আর্সেনিকের মাত্রা এবং আর্সেনিক সংক্রমিত এলাকার পরিধি ক্রমেই বাড়বে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

ছবি ঋণ : ইন্টারনেট

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles