‘সব তথ্য দিলাম, এবার অমিত শাহর উচিত ধোকলা খাওয়ানো’: মমতা

নিউজ ডেস্ক: ‘১১ বছর আগে অমিত শাহ কোথায় ছিলেন?’ এবার সরাসরি দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আক্রমণ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। শুধু তাই নয়, কেন্দ্রীয় রিপোর্ট তুলে ধরে অমিত শাহের ‘মিথ্যা কথা’র জবাব দিলেন মমতা।

সোমবারই মমতা দাবি করেছিলেন, অমিত শাহ বোলপুরের সাংবাদিক সম্মলনে অনেক মিথ্যে কথা বলেছেন। তার জবাব দেবেন তিনি নিজে। মঙ্গলবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এক একটি কথার জবাব দিলেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। তিনি বলেন, ‘‘দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জেনে নিয়ে বলা উচিত ছিল, বাংলা মানেই খারাপ তিনি বুঝিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু ১১ বছর আগে তিনি কোথায় ছিলেন? তখন বাংলার চেহারা কী ছিল? বাংলা এখন ঝকঝক চকচক করছে।’’

কেন্দ্রীয় রিপোর্ট তুলে ধরে মমতা দািব করলেন, ‘‘দ্রারিদ্র দূরীকরণে বাংলা একনম্বর। ১০০ দিনের কাজে একনম্বর। রুরাল হাউজিং, রোড, সংখ্যালঘু উন্নয়নেও বাংলা গোটা দেশের মধ্যে একনম্বর।’’ এরপরে মমতা বলেন, ‘‘জিডিপি নিয়ে অনেক কথা বলেছেন। দেশের জিডিপ ৪.৮০ শতাংশ আর বাংলায় ৭.২৮ শতাংশ। রাজ্যে এফডিআই গ্রোথ ৭৩৬ শতাংশ বেড়েছ তৃণমূলের আমলে। ২২ হাজার কোটি টাকা এফডিআই এসেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিছু না জেনেই কথা বলেছেন। ’’
এখানেই থামেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরেই তিনি বলেন, ‘‘বাংলার আইনশৃঙ্খলা নিয়ে কথা বলেছেন, কিন্তু হাথরস নিয়ে মুখ বন্ধ ছিল। এখানে একটা ঝামেলা হলেই পলিটিক্যাল মার্ডার বলা হচ্ছে।’’ স্বাস্থ্যক্ষেত্রেও বাংলা অনেক এগিয়ে রয়েছে বলে দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘‘আমাকে একটা রাজ্য দেখান, যেখানে বিনামূল্যে সবরকম চিকিৎসা হয়। ’’এছাড়াও শিক্ষাক্ষেত্রে মিড-ডে মিল, কন্যাশ্রী ও সবুজ সাথীর জন্য স্কুলড্রপও কমেছে বলে দািব করলেন মমতা। বর্তমানে ৯৯.৯৬ শতাংশ ইলেক্ট্রিসিটি থাকে বলেও দাবি করেন। সবশেষে তিনি বলেন, ‘সব তথ্য দিয়ে দিলাম, এ জন্য অমিত শাহকে খাওয়াতে হবে। ধোকলা খাওয়াতে হবে।’

 

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles