বিভিন্ন রাজ্যে বার্ড ফ্লু আতঙ্ক, জেনে নিন মানব শরীরে ভাইরাসের লক্ষণ

নিউজ ডেস্ক : করোনা আতঙ্কের মাঝে দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে বার্ড ফ্লু আতঙ্ক মাথা চাড়া দিয়েছে। মারা যাচ্ছে কাক, মুরগি, হাঁস, ময়ূর। বাংলা সহ অন্যান্য রাজ্যেও বার্ড ফ্লু ছড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। পাখিদের থেকে মানুষের শরীরেও ঢুকে পড়ে এই ভাইরাস, জেনে নিন বার্ড ফ্লু থেকে কীভাবে বাঁচবেন।

বার্ড ফ্লু কী?
বার্ড ফ্লু একটি ভাইরাল ইনফেকশন, যেটা পাখিদের মধ্যে শুধু নয় অন্যান্য পশু এবং মানুষের মধ্যেও ছড়াতে পারে। বার্ড ফ্লুর মধ্যে এইচ৫এন১ সাধারণ একটি ফর্ম। এতে আক্রান্ত হয়ে সবথেকে বেশি পাখি মারা যায়, মানুষের শরীরেও দ্রুত ঢুকে পড়তে পারে এই ভাইরাস।

বার্ড ফ্লুর লক্ষণ
মানব শরীরে ঢুকলে ভাইরাস ঢুকলে যে লক্ষণগুলি দেখা দেবে

কফ
ডায়েরিয়া
জ্বর
মাথার যন্ত্রণা
নাক থেকে জল পড়া
গলা ব্যথা
বমি হওয়া
জয়েন্ট পেন
চোখে ইনফেকশন

মানুষের মধ্যে বার্ড ফ্লু কীভাবে হয়?
আক্রান্ত পাখির মল, নাক, মুখ বা চোখ থেকে নিঃসৃত নোংরা থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে এইচ৫এন১ ভাইরাস।

বার্ড ফ্লু-র চিকিৎসা
বার্ড ফ্লু-র বেশ কয়েকটি ভাইরাস আছে, তার চিকিৎসা পদ্ধতিও আলাদা। তবে সব ক্ষেত্রেই উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আক্রান্তের চিকিৎসা শুরু হয়ে যাওয়া দরকার। প্রথমে রোগীকে সবার থেকে আলাদা রাখতে হবে। যাতে তার থেকে আর কারুর শরীরে না ছড়ায় ভাইরাস। আক্রান্তের শারীরিক অবস্থা দেখে চিকিৎসক তাকে অ্যান্টি-ভাইরাল, প্রয়োজন পড়লে অক্সিজেনও দেওয়া হতে পারে। তবে শরীরে বার্ড ফ্লু-র ভাইরাস ঢুকলে দেহ অ্যান্টিবডি তৈরি করতে শুরু করে। রক্ত পরীক্ষা করলে ধরা পড়বে আক্রান্তের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হচ্ছে কিনা।


প্রতিরোধ করবেন কীভাবে?
হাঁস-মুরগির সংস্পর্শে না আসা, সংস্পর্শে এলে প্রোটেকশন নেওয়া
স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, হাত পরিষ্কার রাখুন, মাস্ক পরুন
ঠিক করে রান্না করে ডিম, মাংস খাওয়া

ভ্যাকসিন
২০০৭ সালে আমেরিকা একটি ভ্যাকসিন তৈরি করে। এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করলে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হবে। তবে এই মুহূর্তে আমেরিকায় বার্ড ফ্লু-র প্রকোপ না থাকায় তারা এই ভ্যাকসিন তৈরি করছে না। তাই কোনও দেশের বাজারে মিলছে না এই ভ্যাকসিন।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles