বদায়ূঁ গণধর্ষণকাণ্ডে গ্রেফতার মূল অভিযুক্ত মন্দিরের পুরোহিত

নিউজ ডেস্ক : বদায়ূঁ গণধর্ষণকাণ্ডের ৪ দিন পর গ্রেফতার করা হল মূল অভিযুক্ত মন্দিরের পুরোহিতকে। মন্দিরে পুজো দিতে আসা ওই মহিলার ওপর নৃশংস অত্যাচার চালিয়েছিল মন্দিরের পুরোহিত ও তার দুই শিষ্য। দুজন শিষ্যকে গ্রেফতার করা গেলেও গা ঢাকা দিয়েছিল মূল অভিযুক্ত সত্যনারায়ণ পুরোহিত।

গত রবিবার উত্তরপ্রদেশের বদায়ূঁর একটি মন্দিরে পুজো দিতে গিয়েছিলেন ৫০ বছরের ওই মহিলা। অভিযোগ, তখনই তাঁকে গণধর্ষণ করে সত্যনারায়ণ ও তার দুই শিষ্য। ধর্ষণের পর তাঁর যৌনাঙ্গে লোহার রড ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয় মহিলার বুকে। যার জন্য ভেঙে যায় পাঁজরের হার। মহিলার একটি পা-ও ভেঙে দেওয়া হয়। নৃশংস এই ঘটনা মনে করিয়ে দিয়েছে দিল্লির নির্ভয়াকাণ্ড এবং হাথরসের ঘটনাকে।

ধর্ষণ ও খুনের পর রক্তাক্ত অবস্থায় মহিলার দেহ তাঁর বাড়ির সামনে ফেলে যায় অভিযুক্তরা। নির্যাতিতাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও বাঁচানো যায়নি। মৃত্যুর পর হাসপাতাল থেকে মহিলার দেহটি বাড়িতে ফিরিয়ে আনেন তাঁর পরিবারের লোকজন। সোমবার দুপুর পর্যন্ত বাড়ির উঠোনে খাটিয়াতে রাখা ছিল নির্যাতিতার নিথর দেহ। যে হলুদ চাদরে দেহটি ঢাকা ছিল, রক্তে ভিজে গিয়েছিল সেটি। অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ পদক্ষেপ নিতে দেরি করে বলে অভিযোগ নির্যাতিতার পরিবারের। অনেক পরে পুলিশ এসে দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। নির্যাতিতা প্রৌঢ়ার ময়নাতদন্তের রিপোর্টে যৌনাঙ্গে ক্ষতচিহ্ন মিলেছে। রিপোর্টে উল্লেখ, গণধর্ষণের জেরে অত্যধিক রক্তক্ষরণ হয় ওই প্রৌঢার, যার জেরে তিনি প্রাণ হারান।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles