কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজের দাম ধার্য ১ হাজার টাকা

নিউজ ডেস্ক: ডিসিজিআই-এর ছাড়পত্র পাওয়ার পর দিনই কোভিশিল্ডের দাম জানিয়ে দিল সেরাম ইনস্টিটিউট। ইনস্টিটিউটের মুখ্য কার্যনির্বাহী আদার পুনাওয়ালা জানিয়েছেন, সরকারের জন্য ২০০ টাকা ও সাধারণের জন্য ১ হাজার টাকায় বিক্রি করা হবে এই কোভিশিল্ড। সরকারকে প্রথম দশ কোটি ডোজ বিনামূল্যে দেওয়ার কথাও জানান পুনাওয়ালা। কেন্দ্র কোভিশিল্ডের ছাড়পত্র দিলেও এখনই দেশের বাইরে এই টিকা রফতানি করার অনুমতি মেলেনি বলে জানিয়েছেন তিনি। সরকারের কাছে দেশের বাইরে এই ভ্যাকসিন বিক্রির আবেদন জানান হবে বলেও জানান সেরাম ইনস্টিটিউটের মুখ্য কার্যনির্বাহী আদার পুনাওয়ালা। মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে টিকার দশ কোটি ডোজ তৈরি হয়ে যাবে বলেও জানান আদার। অর্ডার মেলার সাত থেকে দশ দিনের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে টিকার সরবরাহের কাজ।

বছরের শুরুতেই মিলেছিল সুখবর। ইতিমধ্যেই দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ডকে ছাড়পত্র দিয়েছে ডিসিজিআই। সেরাম ইনস্টিটিউটের মুখ্য কার্যনির্বাহী আদার পুনাওয়ালা জানিয়েছেন, পুণের এই সংস্থার তৈরি কোভিশিল্ডের ৫ কোটি ডোজ প্রস্তুত রয়েছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই টিকা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ‘নিরাপদ এবং কার্যকর’ বলে জানিয়েছেন পুনাওয়ালা।

কোভিশিল্ড ছাড়াও ভারত বায়োটেকের কোভ্যাকসিনকেও ছাড়পত্র দিয়েছে কেন্দ্র। তবে গণটিকাকরণ কবে থেকে শুরু হবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে টিকাকরণে অগ্রাধিকারের তালিকা প্রস্তুত করে ফেলেছে সরকার। প্রথম ধাপে ৩০ কোটি ভারতীয়কে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তালিকায় রয়েছেন স্বাস্থ্য কর্মী, পুলিস ও প্রবীণ নাগরিকরা। তার আগে খোলাবাজারে টিকা বিক্রির অনুমোদন মেলা সম্ভব নয় বলেই মনে করছেন বিষেজ্ঞরা। যদিও কোভ্যাকসিনের সুরক্ষা নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়। তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের আগেই কী ভাবে কেন্দ্র এই টিকার ছাড়পত্র পেল ইতিমধ্যেই তা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।

 

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles