ইতিহাস গড়ার স্বপ্নে, দুর্গমতম পথে বিমান ওড়াবে প্রমিলা বাহিনী

নিউজ ডেস্ক: এয়ার ইন্ডিয়ার মহিলা পাইলটরা এবার পাড়ি দিতে চলেছেন দুর্গমতম পথ। যে পথে বিমান ওড়াতে শতবার ভাবেন পাইলটরা, সেই পথকেই বেছে নিয়েছেন পাইলট জোয়া আগরওয়াল এবং অন্যান্যরা। সান ফ্রান্সিসকো থেকে বেঙ্গালুরু, ১৬ হাজার পথ বিমান উড়িয়ে ফিরবেন মহিলা পাইলটের এই দল। মাঝে পড়বে উত্তর মেরু তথা সুমেরু বৃত্ত। আর কঠিনতম চ্যালেঞ্জ এখানেই। সুমেরু বৃত্তের ওই পথে বিমান ওড়ানো মোটেই সহজ ব্যাপার নয়। যেখানে খুব দক্ষ ও অভিজ্ঞ পাইলটদের পাঠান হয় সেখানে যে এই কমবয়সি মহিলা পাইলটদের প্রতি এয়ার ইন্ডিয়া ভরসা করেছে এটাই বড় কথা বলে জানিয়েছেন এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষজ্ঞ পাইলটরা। তারা আশাবাদী জোয়ার আগরওয়ালের নেতৃত্বে পাইলটদের টিম ইতিহাস গড়বে।

বিমান বিশেষজ্ঞরা বলেন সুমেরু পার করতে গেলে বহু অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়। এই জন্যই এই পথকে সবচেয়ে দুর্গম এলাকা বলা হয়। সুমেরুর ওপর দিয়ে উড়ানের সময় নানা সমস্যা হতে পারে। যেখানে কম্পাসের কাঁটা ১৮০ ডিগ্রিতে ঘোরাফেরা করে সেখানে যে কোনও কারণেই যান্ত্রিক গোলযোগ দেখা দিতে পারে। খুব দক্ষ পাইলট না হলে যথেষ্ট সমস্যা হতে পারে।

কিন্তু আত্মবিশ্বাসী জোয়া ২০১৩ সালেও সবচেয়ে কমবয়সি পাইলট হিসাবে দীর্ঘতম পথ বিমানে পাড়ি দিয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন। ক্যাপটেন    জোয়ার হাতেই গুরুদায়িত্ব। সঙ্গে থাকবেন ক্যাপটেন  থানমাই পাপগারি, আকাঙ্ক্ষা সোনাওয়ানে, শিবানি মানহাসেরা। বহুদিনের বিমান ওড়ানোর অভিজ্ঞতা আছে তাঁদের সকলের। এমনকী আকাশে দীর্ঘসময় উড়ানেও অভ্যস্ত তাঁরা।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৩ সালে বোয়িং ৭৭৭ উড়িয়েছিলেন জোয়া। সেই সময় সবথেকে কনিষ্ঠ কম্যান্ডার ছিলেন তিনি। পৃথিবীর অন্যতম দীর্ঘ আকাশ পথ অতিক্রম করতে পারলে এয়ার ইন্ডিয়ার মহিলা কম্যান্ডার হিসেবে ইতিহাস সৃষ্টি করবেন তিনি। স্পষ্টতই, উত্তর মেরু অতিক্রম করলে জোয়ার মুকুটে নতুন পালক যোগ হবে।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles