ট্রুডোর সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিল না ভারত, প্রশ্নের মুখে দু – দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক

নিউজ ডেস্ক: কৃষক বিদ্রোহ নিয়ে জাস্টিন ট্রুডো মন্তব্যের জেরে এবার দু-দেশের দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করল নয়াদিল্লি। এ থেকেই স্পষ্ট দু-দেশের রাজনৈতিক সম্পর্কে ফাটল ধরেছে, মত কূটনৈতিক মহলের একাংশের।

১৫ ডিসেম্বর বিদেশ মন্ত্রকের সচিব রিভা গঙ্গোপাধ্যায় দাসের সঙ্গে কানাডার প্রতিনিধির বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। সেই বৈঠকে অংশ নেয়নি ভারত। অথচ এর আগে করোনা নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য কানাডার বিদেশমন্ত্রী ফ্রান্সোয়া ফিলিপ শ্যাম্পেনের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিয়েছিল ভারত। কিন্তু এবার বৈঠকের দিনটি অসুবিধাজনক বলে এড়িয়ে যায় ভারত। তবে কি কানাডা – ভারত বাণিজ্যিক সম্পর্কে এর প্রভাব পড়বে? উঠছে সে প্রশ্নও।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ভারতের কৃষক বিদ্রোহকে উদ্বেগজনক আখ্যা দিয়ে বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের অধিকার রক্ষার জন্য সর্বদা পাশে থাকবে কানাডা।’ মূলত কানাডার পাঞ্জাবি ভোটব্যাঙ্কের কথা মাথায় রেখেই ট্রুডোর এই মন্তব্য বলে মত রাজনৈতিক মহলের। যদিও দেশের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে এহেন মন্তব্য ভালো চোখে দেখেনি কেন্দ্রীয় সরকার। ভারতে কানাডার হাইকমিশনার নাদির প্যাটেলের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলে ভারত সরকার। এরপর ১৫ ডিসেম্বরের বৈঠকেও যোগদান করল না নয়াদিল্লি। এর ফলে ধাক্কা খেল ভারত – কানাডা সম্পর্কও। যদিও কূটনীতিবিদরা জানিয়েছেন, রাজনৈতিক সম্পর্ক ধাক্কা খেলেও সেই রেশ অর্থনৈতিক সম্পর্কে পড়বে না।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles