আলোচনার মাধ্যমে সমাধান খুঁজে বের করতে হবে, দিল্লিতে কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে মন্তব্য সুপ্রিম কোর্টের

বীরেন ভট্টাচার্য, নয়াদিল্লি

দিল্লিতে কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে প্রতিবাদ অব্যাহত। “কৃষকদের সর্বনাশা” এই বিলটি প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে কৃষক সংগঠনগুলি। এই পরিস্থিতিতে বুধবার সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করতে হবে। আদালতের পর্যবেক্ষণ, “কৃষকেদর সঙ্গে কেন্দ্রের দরকষাকষি ও শর্তগুলি কাজে আসছে না এবং সেগুলি প্রায় ব্যর্থ হতে বসেছে।” পাশাপাশি এই বিষয়টির সমাধান করতে কেন্দ্র এবং কৃষকদের প্রতিনিধিদের নিয়ে কমিটি গড়ার প্রস্তাব দিয়েছে শীর্ষ আদালত। একইসঙ্গে পঞ্জাব, হরিয়ানা দিল্লি রাজ্য সরকারকে নোটিশ পাঠিয়ে বৃহস্পতিবারের মধ্যে জবাব দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

ইতিমধ্যেই কৃষকদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের পঞ্চম দফার বৈঠক হয়েছে। বিক্ষোভরত কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেছেন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। যদিও কৃষকদের দাবি, সেপ্টেম্বরে আনা কৃষক আইনটি বাতিল করতে হবে এবং ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নিয়ে আশ্বাস দিতে হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এদিন জানানো হয় সরকার আগেও আলোচনার জন্য রাজি ছিল এবং এখনও রাজি আছে। কেন্দ্রের যুক্তি, “সমস্যা হচ্ছে কৃষকদের ‘হ্যাঁ’ অথবা ‘না’ বিকল্প থাকায়। এমনকী একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তাঁদের সঙ্গে কথাও বলেছেন। কৃষকরা ঘুরে গিয়েছেন এবং আলোচনা চাইছেন না।” কোনও দলের নাম না করে এদিন সওয়াল জবাবে কেন্দ্রীয় সরকারের মন্তব্য, “এখন মনে হচ্ছে কৃষকদের বিক্ষোভের সঙ্গে অন্য কারও স্বার্থ জড়িয়ে রয়েছে।”

এদিন শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে বলেন, “কেন কৃষকদের সংগঠনকে মামলার পক্ষ হিসেবে রাখা হয়নি। তাদের কথা না শুনে কীভাবে রায় দেওয়া যাবে।”

কৃষকদের বিক্ষোভ নিয়ে একাধিক মামলা রুজু করা হয়। তার মধ্যে একটিতে বলা হয়, যেহেতু করোনা ভাইরাসের প্রকোপ চলছে, সেইজন্য কোনও একটি ভাল জায়গায় কৃষক বিক্ষোভের নির্দেশ দেওয়া হোক। ওপর একটি মামলায় কেন্দ্রকে কৃষকদের দাবি মেনে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হোক। সেখানে কৃষক নেতাদের ওপর কোনও পুলিশি অত্যাচার হচ্ছে কিনা তা দেখতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়ার দাবি তোলা হয়েছে। অপর মামলায় কৃষক সংগঠনের নেতাদের দিল্লিতে যন্তরমন্তরে বিক্ষোভের অনুমতি দেওয়ার দাবি তোলা হয়েছে। যদিও এদিন সুপ্রিম কোর্ট কোনও নির্দেশ দেয়নি, আপাতত তাদের নোটিশ দিতে বলেছে।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles