ইংরাজি নববর্ষে রাজ্যগুলিকে বিধিনিষেধ আরোপ করতে বলল কেন্দ্রীয় সরকার

নিউজ ডেস্ক: ভারতে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে ব্রিটেনে নতুন প্রজাতির ভাইরাসের প্রার্দুর্ভাব দেখা গিয়েছে, যার ফলে উদ্বিগ্ন কেন্দ্রীয় সরকার। সামনেই ইংরাজি নববর্ষ, বর্ষবরণের রাতে যাতে পরিস্থিতি বেলাগাম না হয়, তার জন্য রাজ্যগুলিকে বিধিনিষেধ আরোপ করতে বলল কেন্দ্রীয় সরকার। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে ৩০ ডিসেম্বর থেকে ১ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থানীয় স্তরে নির্দিষ্ট বিধিনিষেধ আরোপ করতে বলল কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যগুলিকে লেখা চিঠিতে কেন্দ্রের তরফে বলা হয়েছে, ‘‘গত সাড়ে তিনমাসে দেশে করোনা আক্রান্তের হার ধারাবাহিকভাবে কমছে। ইউরোপ এবং আমেরিকায় নতুন করে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার কথা মাথায় রেখে, দেশে এখনও সঠিকভাবে সাবধানতা অবলম্বন এবং নজরদারির প্রয়োজন।’’

কেন্দ্রের তরফে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘‘স্বীকার করতে হবে যে, ইংরাজি নববর্ষ এবং শীতের মরশুমে নানান ধরণের উৎসবের আবহ। যেগুলি থেকে ব্যাপকভাবে সংক্রমণ ছড়াতে পারে, সেই ধরণের অনুষ্ঠান এবং জমায়েতের ওপর কড়া নজরদারি চালানো প্রয়োজন।’’ যদিও আন্তঃরাজ্য এবং অন্তঃরাজ্য চলাচলে পণ্য ও মানুষের ক্ষেত্রে কোনও বিধিনিষেধ থাকছে না। নতুন বছরের শুরুতে ব্যাপকভাবে ভাইরাস ছড়াতে বলে আশঙ্কা রয়েছে কেন্দ্রের। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ ভূষণের তরফে সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে জানান কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার এক সদস্য।

দিল্লিতে দৈনিক সংক্রমণের হার ৮,৫০০ এবং সারা দেশে তা দৈনিক ৯৭,০০০। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০,৫৪৯, যা গতকালের থেকে ২৫ শতাংশ বেশি, এখনও পর্যন্ত সারা দেশে এই নিয়ে মোট আক্রান্ত ১ কোটি ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ৮৫২ জন। করোনার বলি সারা দেশে এখনও পর্যন্ত ১.৪৮ লক্ষ জন। নতুন করোনা ভাইরাস আগের থেকে ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রামক বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশে এখনও পর্যন্ত ২০ জনের শরীরে নতুন স্ট্রেনের করোনা ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। তাঁরা প্রত্যেকেই ব্রিটেন থেকে ফিরেছেন। ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত রাখা হয়েছে ব্রিটেনগামী সমস্ত উড়ান। ৯ ডিসেম্বর থেকে ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে আন্তর্জাতিক উড়ান ব্যবহার করা যাত্রীদের পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles