করোনার টিকা কী জানুয়ারিতে!  জানাল স্বাস্থ্যমন্ত্রক

নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব মহামারির আকার ধারণ করেছে কোভিড ১৯। কোথাও লাখ তো কোথায় কোটি ছাড়িয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। শেষমেষ বহু অপেক্ষার পর আগামী বছরের জানুয়ারিতেই আসতে চলেছে করোনার প্রতিষেধক। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডক্টর হর্ষ বর্ধন জানান আগামী মাসের থেকেই দেওয়া হবে করোনার টিকা। সরকারের মূল লক্ষ্যই হবে সুরক্ষিত ও কার্যকরী প্রতিষেধক সাধারণ মানুষকে দেওয়া। ফাইজার, ভারত বায়োটেক ও সেরাম ইন্সিটিটিউট টিকাকরণের জন্য ড্রাক কন্ট্রোলার জেনারেলের কাছে অনুমতি চেয়েছে। কিন্তু অনুমতি দেওয়ার আগে তার কার্যকারিতাকে পরখ করে তবেই সেটাকে মান্যতা দেওয়া হবে বলে জানান কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন।

ইতিমধ্যেই ভ্যাকসিনের রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে সরকার। যেখানে জানানো হয়েছে, প্রথমে ভ্যাকসিন পাবেন দেশের ২৯ কোটি নাগরিক। যার মধ্যে ১ কোটি স্বাস্থ্যকর্মী, ২ কোটি সামনের সারির যোদ্ধা ও ২৬ কোটি গুরুতর অসুস্থ বয়স্করা। তবে সাধারণ মানুষকে করোনা প্রতিষেধক পেতে হলে রেজিস্ট্রেশন করা বাধ্যতামূলক বলে জানালো কেন্দ্র।

কিছুদিন আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রক এইটাও জানিয়েছিল, দেশের করোনা প্রতিষেধক অন্যান্য দেশের প্রতিষেধকগুলির মতোই সমান কার্যকরি হবে।

উল্লেখ্য, দেশে এখন মোট ৬ করোনা প্রতিষেধকের ট্রায়াল চলছে। সেগুলি হল, ভারত বায়োটেকের কোভ্যাকসিন, জাইডাস ক্যাডিলার জাইকোভ-ডি, সেরাম ইনস্টিটিউটের তত্ত্বাবধানে অক্সফোর্ডের কোভিশিল্ড, ডঃ রেড্ডিজ ল্যাবের তত্ত্বাবধানে রাশিয়ার স্পুটনিক ভি, এনভিএক্স-কো-ভি২৩৭৩ ও একটি প্রোটিন অ্যান্টিজেন বেসড করোনা প্রতিষেধক। যদি করোনার টিকা আগামী জানুয়ারি মাসে দেওয়া শুরু হয় তাহলে নিঃসন্দেহে হাসি ফুটবে ১৩০ কোটি ভারতবাসীর মুখে।

 

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles