জিতেন্দ্রর বিজেপি যোগের সম্ভাবনায় ‘ফোঁস’ বাবুলের

নিউজ ডেস্ক: ১৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবারই দলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি। এরপর থেকেই রাজনীতির আনাচেকানাচে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে শনিবার মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভাতে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি। তবে এখনও পর্যন্ত জিতেন্দ্র তিওয়ারি নিজে কিছু খোলসা করে বলেননি। কিন্তু তাঁর বিজেপিতে যাওয়ার সম্ভাবনা ছড়িয়ে পড়তেই বৃহস্পতিবার রাতে সোশ্যাল সাইটে পোস্টে তোপ দাগেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

ফেসবুক পোস্টে বাবুল সুপ্রিয় স্পষ্ট লেখেন, “শীর্ষ নেতৃত্ব কী করেন, সেটা একেবারেই আলাদা ব্যাপার। সেই সিদ্ধান্তই সর্বোচ্চ। তাতে আমার কিছু বলার অধিকার নেই। কিন্তু এটাও ঠিক যে এতদিন ধরে চূড়ান্তভাবে আমার প্রচুর বিজেপি সহকর্মী আসানসোলে আক্রান্ত হয়েছেন। কেউ আহত হয়েছেন, কারও বা মৃত্যুও হয়েছে। তাই তৃণমূলের কেউ বিজেপি–তে এলে তা আমি মন থেকে মেনে নিতে পারব না।” শুক্রবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর বক্তব্যকে সমর্থন করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও। রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুও সাফ জানিয়েছেন, তিনিও চান না জিতেন্দ্রকে বিজেপি-তে নেওয়া হোক। এ নিয়ে তাঁর আপত্তির কথা তিনি ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে জানিয়ে দিয়েছেন। একই সুর অগ্নিমিত্রা পলের গলাতেও। তাঁর দাবি, “ওঁকে আসানসোলের মানুষ পছন্দ করে না। বিজেপিতে ওঁকে নেওয়া উচিত নয়।”

এ প্রসঙ্গে জিতেন্দ্র তিওয়ারির বক্তব্য, “আমি তৃণমূল ছেড়েছি। অন্য দলে এখনও যোগ দিইনি। এরকম প্রতিহিংসার কোনও মানে হয় না। বাবুল সুপ্রিয় আমাকে পছন্দ করেন না, সেটা জনসমক্ষে বলেছেন। ওঁর মনে হয়েছে এটা বলা উচিত তাই বলেছেন। ভবিষ্যতে চেষ্টা করব যাতে অন্য কোনও ব্যক্তির আমাকে নিয়ে এই ধারণা না হয়। কোথাও ভুল হচ্ছে, ঠিক করার চেষ্টা করব।” প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এতদিন তৃণমূলের মধ্যে প্রচলিত ছিল “মাদার তৃণমূল” ও “নব্য তৃণমূল”। যা নিয়ে প্রায়শই দলের অন্দরে গন্ডগোল লেগেই থাকে। তবে কি এবার বিজেপি-তেও তা ধীরে ধীরে প্রকট হচ্ছে সেই ধারা। তৃণমূল থেকে বিজেপি-তে যোগদানের হিড়িক চালুর পর এই বিরোধ ও সমস্যা আরও প্রকট হতে পারে বলেই মত রাজনৈতিক মহলের।

 

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles