অমর্ত্য সেনকে ‘হেনস্তা’ বিশ্বভারতীর, আজ প্রতিবাদে বাংলার বিদ্বজ্জনেরা

নিউজ ডেস্ক : শান্তিনিকেতনে অমর্ত্য সেনের বাড়ি বিতর্কে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে কেন্দ্র-রাজ্য তরজা। নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদকে জমি বিতর্কে বিশ্বভারতীর দেওয়া চিঠির প্রতিবাদে এবার মুখর হতে চলেছেন রাজ্যের গুণীজনেরা। আজ রবিবার দুপুর ৩টে নাগাদ বাংলা অকাদেমির সামনে অমর্ত্য সেনকে বিশ্বভারতীর পাঠানো চিঠির প্রতিবাদ করবেন তাঁরা। প্রতিবাদ সভায় থাকবেন কবি জয় গোস্বামী, কবি সুবোধ সরকার, চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্ন যোগেন চৌধুরী, পুরাণবিদ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ী, গায়ক কবীর সুমন, চিত্রপরিচালক অরিন্দম শীল, রাজ চক্রবর্তী, সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন-সহ আরও অনেকে।

এদিকে বিশ্বভারতীর জমি বিতর্কে মুখ খুলেছেন নোবেলজয়ী অর্মত্য সেন। সাংবাদমাধ্যমে চিঠি দিয়ে তিনি জানান, “বিতর্কিত জমির অংশটি পুরোটাই তাঁর। এটা রেজিস্টারও করা আছে। জমিটি দীর্ঘমেয়াদি লিজে নেওয়া আছে। এখনও সেটা মেয়াদ ফুরোয়নি।’

সম্প্রতি শান্তিনিকেতনে অমর্ত্য সেনে পৈত্রিক বাড়ি ‘প্রতীচী’ সংলগ্ন একটি জমি নিজেদের বলে দাবি করে চিঠি পাঠায় বিশ্বভারতী। সেই চিঠি ঘিরে ইতিমধ্যেই রাজ্যের দুই যুযুধান রাজনৈতিক দল তৃণমূল-বিজেপি নতুন ভাবে রাজনৈতিক সমীকরণ তৈরি করেছে। এমনিতেই দীর্ঘদিন ধরে বিজেপি সরকারের সঙ্গে অমর্ত্য সেনের সম্পর্ক ভালো নয়। তার কারণ মোদি সরকারের নানান অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে বিরাগভাজন তিনি। এই পরিস্থিতিতে বিশ্বভারতীর জমি বিতর্ক বিজেপির হাতে নয়া অস্ত্র। তাই অমর্ত্য সেনের বিষয়ে নানা বিতর্কিত মন্তব্য করে চলেছে বিজেপি।

অন্যদিকে নোবেলজয়ীর সমর্থনে এগিয়ে আসে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এমনকী বেআইনিভাবে যে জমি দখলের অভিযোগ তুলেছে বিশ্বভারতী, তাতে যথেষ্ট ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার নবান্নের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অমর্ত্যদার অমর্যাদা আমরা হতে দেব না। ওনার পরিবার এখানে আছেন প্রায় ৭০-৮০ বছর। যাঁরা এসব বলছেন, তাঁরা ওনার সম্পর্কে কতটুকু জানেন?’ তাই আজ রবিবার রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসুর উদ্যোগে বাংলা অকাদেমির সামনে নোবেলজয়ীর সমর্থনে প্রতিবাদে সামিল হচ্ছেন রাজ্যের গুণীজনরা।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles