উনিশে জয়ের কৃতিত্ব শুভেন্দুকে দিলেন বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ

নিউজ ডেস্ক: তিনি নিজেই স্বীকার করেছিলেন, ২০১৪ থেকেই অমিত শাহর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন। এবার ২০১৯-এর বিষ্ণুপুরে বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁয়ের জেতার নেপথ্যে তাঁরই কৃতিত্ব রয়েছে বলে জানালেন সাংসদ নিজেই। ‘২০১৯ সালের ভোটে বিষ্ণুপুর থেকে জিততে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী’, সৌমিত্র এই কথা বলার পরই শুভেন্দুকে নিয়ে ফের নতুন করে শুরু হয়েছে বিতর্ক। তাহলে কী তিনি ২০১৪ থেকেই দলবিরোধী কাজ করছিলেন?

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন সৌমিত্র খাঁ। কিন্তু আদালতের নির্দেশে বিষ্ণুপুরে সৌমিত্রর প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকায় তাঁর প্রচারের গোটা দায়িত্ব একা কাঁধেই সামলেছিলেন স্ত্রী সুজাতা খাঁ। সৌমিত্রর সাংসদ হওয়ার পিছনে সুজাতারই হাত আছে এই ছবিই স্পষ্ট হয়েছিল। কিন্তু তিনি বর্তমানে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। হয়তো তাই সৌমিত্রের মুখে এল না স্ত্রীর প্রশংসা। বরং তিনি কৃতিত্ব দিলেন শুভেন্দু অধিকারীকে। কাঁথির জনসভায় বিষ্ণুপুরের সাংসদ বলেন, ‘‌সেদিন আমি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর তৃণমূলের একজন নেতাকেই ফোন করেছিলাম—শুভেন্দুদা। বলেছিলাম, দাদা, আপনি বিষ্ণুপুরে প্রচার করতে আসবেন না। উনি আমার কথা শুনে আমার সংসদীয় এলাকায় প্রচার করতে আসেননি। তাই আমি জিততে পেরেছিলাম।’‌ সেদিনের অবদানের কথা জনসমক্ষে এনে শুভেন্দুর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন সৌমিত্র।

এখানেই একাধিক প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। তাহলে কি এতদিন দলে থেকে দলের বিরুদ্ধেই কাজ করছিলেন শুভেন্দু? তাহলে কি সত্যিই শুভেন্দু তৃণমূলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকা করেছেন। পাশাপাশি শুভেন্দুর অবদান প্রকাশ্যে এনে সৌমিত্র নিজেই বেকায়দায় পড়লেন। এমন প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে, তাহলে কি নিজের সাংগঠনিক জোর বলে কিছুই নেই সৌমিত্রর?

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles