ভাই সৌমেন্দুর অপসারণ নিয়ে মমতাকে চিঠি পাঠাচ্ছেন দিব্যেন্দু অধিকারী

নিউজ ডেস্ক: ভাইকে দায়িত্বে পুর্নবহাল করতে হবে। নয়তো বাবা প্রবীণ সাংসদ শিশির অধিকারী ও দিব্যেন্দু নিজে আর কখনওই যাবেন না পুরসভার অফিসে। এই মর্মে এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি লিখছেন বলে জানালেন দিব্যেন্দু অধিকারী। পাশাপাশি তিনি এবং তাঁর বাবা শিশির অধিকারী ও ভাই সৌমেন্দু তৃণমূলে ছিলেন এবং আছেন বলেই সাফ জানাবেন চিঠিতে।

গত ২৬ ডিসেম্বর রামনগরের তৃণমূল বিধায়ক অখিল গিরি সংবাদমাধ্যমে দাবি করেছিলেন শীঘ্রই পদ থেকে সরানো হবে সৌমেন্দুকে। তাঁর কথা মিলে গেল মঙ্গলবার রাতে। ভাই সৌমেন্দুকে অপসারণ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দিব্যেন্দু অধিকারী। এবার এবিষয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দেবেন তিনি। রামনগরের বিধায়ককে কাঠগড়ায় তুলে সাংসদ লিখবেন, “এক তৃণমূল নেতার মিথ্যে অভিযোগের ভিত্তিতে অবিচার ও অনৈতিক সিদ্ধান্তের শিকার হতে হচ্ছে সৌমেন্দুকে। অবিলম্বে তাঁকে দায়িত্ব ফেরাতে হবে। পুরনো প্রশাসক বোর্ডের হাতে দায়িত্ব তুলে দিতে হবে।” নাহলে তাঁর পথে হেঁটে বাবা শিশির অধিকারীও পুরসভার অফিসে যাবেন না বলেই দাবি দিব্যেন্দুর।

চিঠিতে দিব্যেন্দু সাফ জানাবেন, তিনি এবং তাঁর বাবা শিশির অধিকারী ও ভাই সৌমেন্দু তৃণমূলে ছিলেন আর আছেন। সম্প্রতি সৌমেন্দুর বিরুদ্ধে পুরসভায় বসে বিজেপির হয়ে কাজ করার অভিযোগ তুলেছিলেন অখিল গিরি। বর্তমানে তিনি কোভিড আক্রান্ত। তবে তাঁর অঙ্গুলিহেলনেই যে সৌমেন্দুকে অপসারণ করা হয়েছে, তা নিয়ে কার্যত নিশ্চিত অধিকারী পরিবার। আর তাই ইতিমধ্যেই কাঁথি পুরসভার উলটোদিকে একটি ঘর দেখেছেন অধিকারীরা বলে সূত্রের খবর। সৌমেন্দুকে দায়িত্বে না ফেরানো হলে সেখান থেকেই জনসংযোগের কাজ চালাবেন শিশির ও দিব্যেন্দু অধিকারী বলে মনে করা হচ্ছে।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles