ঘর ভাঙল তৃণমূলের, বিজেপিতে সংখ্যালঘু নেতাদের যোগদান

নিউজ ডেস্ক: ঘর ভাঙল রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের। তাবড় নেতা শুভেন্দু অধিকারী তো যোগ দিলেনই। একইসঙ্গে বিজেপিতে যোগ দিলেন ৯ বর্তমান বিধায়ক, এক সাংসদ, এক প্রাক্তন সাংসদ ও রাজ্যের এক প্রাক্তন মন্ত্রী। যোগ দিলেন একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বও। তবে বিধানসভা নির্বাচনের আগে নজর কাড়ল ছয় সংখ্যালঘু নেতার দলবদল।

এবার সংখ্যালঘুবিরোধী তকমা ঘুচিয়ে দিতে পালটা চাল দিল বিজেপি। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতারাও এদিন বিজেপিতে যোগ দিলেন অমিত শাহের হাত ধরে। ছয় নেতার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নামটাই হল কবিরুল ইসলাম। তিনি তৃণমূলের রাজ্য সংখ্যালঘু সেলের সম্পাদক ছিলেন। শুক্রবারই দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন তিনি। এরপর শনিবার অমিত শাহের সভা থেকে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নিলেন।

এদিন দলবদল করা ন’জন বর্তমান বিধায়কের মধ্যে ছ’জনই তৃণমূলের। রয়েছেন বনশ্রী মাইতি (উত্তর কাঁথি), সৈকত পাঁজা (পূর্ব বর্ধমান), বিশ্বজিৎ কুণ্ডু (কালনা), শীলভদ্র দত্ত (ব্যারাকপুর), অশোক দিন্দা (তমলুক), সুকরা মুন্ডা (নাগরাকাটা)। বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিলেন তাপসি মণ্ডল (হলদিয়া), দিপালী বিশ্বাস (গাজল),সুদীপ মুখোপাধ্যায় (পুরুলিয়া)। রয়েছেন বর্ধমানের সাংসদ সুনীল মণ্ডল, প্রাক্তন সাংসদ দশরথ তিরকে ও রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। এছাড়াও যোগ দিলেন তৃণমূলের রাজ্যস্তরের নেতা কর্নেল দীপ্তাংশু চৌধুরি, আশিস দত্ত ও বাপ্পা মজুমদার, কার্তিক বিশ্বাস, অসিত দত্ত-সহ একঝাঁক নেতা।

রাজ্যস্তরের তৃণমূল নেতা অধ্যাপক ওইদুল হক, হুগলির প্রাক্তন বিধায়ক পারভেজ রহমান, বীরভূমের দাপুটে নেতা করম হুসেন খান, হুগলির নেতা আলমগীর মোল্লা। তাঁদের যোগদান নিসন্দেহে বাংলায় গেরুয়া শিবিরের সংগঠন মজবুত করতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কাছে বিজেপির ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে বলেই ধারনা ওয়াকিবহাল মহলের। এদিনই অমিত শাহ মমতাকে হুঁশিয়ারি দিয়ে দাবি করলেন, ‘তৃণমূলে আপনি শুধু একা থাকবেন’।

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles